দেশে সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে সড়ক পরিবহন শ্রমিকদের নিয়োগপত্র দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্লাহ। নিয়োগপত্র দেওয়া-নেওয়ার আইনি বিধান এখন থেকে মানবেন বলে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির কাছে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা।

জাতীয় সংসদে কমিটির বৈঠকে উপস্থিত হয়ে গত মঙ্গলবার উভয় পক্ষ নিয়োগপত্রের বিধান কার্যকরের প্রতিশ্রুতি দেয় কমিটির সভাপতি জনাব মুজিবুল হক চুন্নু জানিয়েছেন।  এছাড়াও বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “আইনেই নিয়োগপত্র দেওয়ার কথা রয়েছে, পরিবহনের রুট পারমিটের জন্য আবেদনের সাথে চালকের নিয়োগপত্র যুক্ত করতে হয়।

মালিক ও শ্রমিক উভয় পক্ষেরই অনীহার কারণে এটার বাস্তবায়ন হচ্ছে না। আলোচনার প্রেক্ষিতে দুই পক্ষই এই বিষয়ে একমত হয়েছে। তাই এখন থেকে মালিকরা নিয়োগপত্র দেবেন এবং শ্রমিকরা সেটা নেবেন। এবিষয়ে দুই পক্ষকে আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠি দেওয়া পর বিধানটি বাস্তবায়ন হচ্ছে কিনা তা কমিটির পক্ষ থেকে শ্রম বিভাগকে নিবিড়ভাবে তদারকি করতে বলা হয়েছে।

সংসদ সচিবালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বৈঠকে ব্যক্তি মালিকানাধীন সড়ক পরিবহন শ্রমিক কল্যাণ তহবিল বোডের নিয়ন্ত্রণ, বোর্ডকে আরও যুগোপযোগী ও বাস্তবসম্মত করার লক্ষ্যে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিবকে আহ্বায়ক করে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় এবং বিআরটিএ-এর উপযুক্ত প্রতিনিধির সমন্বয় একটি কমিটি গঠনে সুপারশ করা হয়। এ কমিটি গঠনের অগ্রগতি কী তা কমিটির আগামী বৈঠকে উপস্থাপন করতে বলা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ডে সংঘটিত দুর্ঘটনায় ২০১৯ সালে নিহত ১৯ জন শ্রমিকের পরিবারকে মালিক পক্ষ থেকে ১ কোটি ১৪ লক্ষ টাকা, ২০১৮ সালে ১৭ জন শ্রমিকের পরিবারকে ৮৫ লক্ষ টাকা এবং ২০১৭ সালে ১৬ জন শ্রমিকের পরিবারকে ৮০ কোটি ২৫ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ প্রদান করা হয়েছে।  

কমিটির সভাপতি মুজিবুল হকের সভাপতিত্বে সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটির সদস্য শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ান, সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের কার্যকরী সভাপতি শাজাহান খান, ইসরাফিল আলম ও শামসুন নাহার বৈঠকে অংশ নেন।


তথ্যসূত্রঃ বিডিনিউজ২৪.কম, দৈনিক যুগান্তর ও দৈনিক নয়া দিগন্ত

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।