শ্রমিক বিক্ষোভের কারণে গতকাল সোমবার বেনাপোল বন্দরে পণ্য খালাস ৪ ঘণ্টা বন্ধ ছিল। শ্রমিকদের ওপর দুর্বৃত্তদের হামলা করার প্রতিবাদে বন্দরের মূল সড়কের উপর টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ ও বিক্ষোভ করছেন শ্রমিকরা। ফলে পণ্য খালাস করার পাশাপাশি বন্দর এলাকায় যানবাহন চলাচলও বন্ধ হয়ে যায়।  

গতকাল দুপুর ১২টা থেকে এই বিক্ষোভ শুরু হয় যা বিকাল ৪টা পর্যন্ত চলে। পরিস্থিতি জটিল আকার ধারণ করলে পুলিশ ও বন্দরের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে চলে আসেন। 

বিক্ষোভ বিষয়ে জানা যায়, বাইপাস সড়কের পাশে শ্রমিকরা যখন পাথর খালাসের কাজে ব্যস্ত ছিল তখন দুর্বৃত্তরা টেন্ডার সংক্রান্ত পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তাদের ওপর হামলা চালায়। এতে ঘটনাস্থলে দু’জন শ্রমিক গুরুতর আহত হয়। বিষয়টি শ্রমিক নেতারা জানতে পেরে ঘটনাস্থলে গেলে তাদের তিনটি মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিয়ে ভাঙচুর করে দুর্বৃত্তরা।  

আরও জানা যায়, শ্রমিকদের মোট দু’টি গ্রুপ আছে বেনাপোল বন্দরে। টেন্ডার পরিবর্তন নিয়ে একটি গ্রুপ বর্তমানে কাজ করছে। বেনাপোল বন্দরে সম্প্রতি নতুন একটি টেন্ডার হয়েছে। ফলে তা নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনাও বিরাজ করছিল। ধারণা করা হচ্ছে এসব নিয়ে এই হামলা ও উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। 

এদিকে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে একটি পক্ষ বেনাপোল বাজার ও তালশারি মোড়ে তিনটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে।

ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বেনাপোল বন্দর থানা, জনাব মামুন খান জানান, “আন্দোলরত শ্রমিকদের সঙ্গে হামলার বিষয়ে কথা বলেছি। অপরাধীদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করতে বলা হয়েছে। পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নিবে।”

বিকেল ৪টার পর থেকে বিক্ষোভ ধীরে ধীরে কমে আসে এবং শ্রমিকরা কাজে যোগ দেয়। আজ সকাল থেকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।  

তথ্যসূত্রঃ বাংলানিউজ২৪.কম ও ডেইলি বনিক বার্তা 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।